রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
নোটিশ

জেলা/উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ : সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকার জন্য গাইবান্ধা  জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা , উপজেলা, থানা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান/এলাকায় প্রনিতিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাসপোর্ট সাইজের এক কপি ছবিসহ সরাসরি অথবা ডাকযোগে সম্পাদক বরাবর আবেদন করুন

প্রকাশক সম্পাদক, সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে , গোডাউন রোড, কাঠপট্টী, গাইবান্ধা। ফোন: : ০১৭১৫-৪৬৪৭৪৪, ০১৭১৩-৫৪৮৮৯৮,

শয়তান

রফিকুল ইসলাম / ৯৯ Time View
Update : শনিবার, ২২ মে, ২০২১, ৬:১৪ পূর্বাহ্ন

সৈয়দপুর হাই স্কুলের একজন শিক্ষক নাম রফিকুল ইসলাম জোক করে ফেসবুকে লিখেছেন মিতা এরপরে শয়তান নিয়ে লিখবে। আমি তার ইচ্ছা পূরণ করে আজকের এই লেখা তাকেই উৎসর্গ করলাম। আমি শয়তান। শয়তান হিসেবে আমার জন্ম আদমের জন্মের পরে ।

মহান রাব্বুল আলামিন আমাকে আদমকে সেজদা করতে বললেন । তখন আমি অহংকারী হয়ে বললাম আমি মাটির তৈরি আদমকে সেজদা করতে পারিনা। আল্লাহর নির্দেশ অমান্য করার কারণে সেদিন থেকে আমি ফিরিশতা থেকে শয়তানে রূপান্তরিত হলাম। শয়তান আরবি শব্দ।তার অর্থ ধোঁকাবাজ, প্রতারক ,ঠকবাজ , অভিশপ্ত ইত্যাদি ইত্যাদি। আবার হিব্রু ভাষায় সাতান একটি শব্দ আছে।যা সর্বদায় মন্দ অর্থে ব্যবহৃত হয়। যার আভিধানিক অর্থ শত্রু বা দুস্মন। আসলেই আমি দুশমন, আমি শত্রু আমি ঠকবাজ আমি প্রতারক। আমি মানুষের শত্রু, সমাজের শত্রু, দেশের শত্রু ,সভ্যতার শত্রু। ছলনা প্রতারণা করাই আমার কাজ ।

মানুষের মন থেকে সুচিন্তা ,সুভাবনা গুলো মুছে দিয়ে কুচিন্তা ,কুভাবনা ভরিয়ে দেয়াই আমার প্রতিদিনের রুটিন। শয়তান বলে অনেকেই আমাকে গালি দাও ।কিন্তু আমি গায়ে মাখিনা। কারণ আমি জানি আমি কি করি ওটা আমার প্রাপ্য। এর বিপরীত দিকও আছে ভালোবেসে অনেকেই আমাকে শয়তান বলে ডাকে। যেমন মায়েরা বলে দুষ্টু ছেলে শয়তান হয়েছো ।আবার স্ত্রীরা স্বামীকে ভালো বেসে বলে শয়তান। যখন কেউ মনের মাধুরী মিশিয়ে আমাকে শয়তান বলে ডাকে।তখন মনের আনন্দে তা- ধিন -ধিন নাচতে ইচ্ছে করে। বুকের ছাতিটা অহংকারে ফুলে উঠে। আবার ভাবি কূ মন্ত্রনা কূ পরামর্শদিয়ে মানুষের এত ক্ষতি করার পরও মানুষ আমাকে ভালো বাসে। তখন আমি নিশ্চিত যে আমি আমার কাজ কর্ম সঠিক, সুন্দর ও সুচারুরূপে সম্পন্ন করছি এবং আমার পথই ঠিক।।এখন এটা পরিষ্কার হল আমাকেও ভালো বাসার লোক আছে। কেউ কেউ বলে আমি নাকি মানুষের মানববর্জ্য বহির্গমনের পথে সর্বদাই আঙ্গুল দিয়ে থাকি।হ্যা দেইতো। যখন কোন কাজ থাকে না তখন ঐ কাজটি করতে আমি মজা পাই।ইহ জগতের পূর্ব থেকে পশ্চিম, উত্তর হতে দক্ষিণ,ঊধ হতে অধ আমি নিমেষে ঘুড়ে আসতে পারি।জলে স্থলে অন্তরিক্ষে আমার অবাধ যাতায়াত।মানব শরীরের শিরায় উপশিরায় আমি বিদ্যুৎ গতিতে চলাচল করি।

যেখানে অধর্ম, পাপ, ব্যাভিচার, অনাচার, অবিচার সেখানে আমার সরব উপস্থিতি। হাজার হাজার বছর ধরে পাপকাজে লিপ্ত হতে মন্ত্র দেই আমি। কিন্তু আমি কোন পাপ করিনা। পাপের দায়ভার আমার না। আমার কর্ম বায়ূবীয়। আমাকে দেখা যায় না, আবার ইচ্ছে করে কেউ ছূতেও পারে না।যা করেছে মানুষ করেছে।পাপ যদি হয় তাদের হবে। আমি কেন? আমি ওয়াদা করেছি কিয়ামত তক্ক মানুষকে বিভ্রান্ত করে, উৎসাহ দিয়ে পাপের পথে টেনে নিয়ে আসবো। আমি আমার ওয়াদা অঙ্গীকার রক্ষা করতে যেটা করা দরকার তাই করি।তার বাইরে কখনো যাই না।সীমার মধ্যে আমি থাকি।আমি সীমা লঙ্ঘন করি না। বিশ্বের অনেক দেশে ,অনেক জনপদে আমার আর যাওয়ার দরকার হয় না। আর তোমাদের বাংলাদেশে আসাতো অনেক আগেই ছেড়ে দিয়েছি।যখন দেখলাম তোমরা শয়তানিতে আমাকে অতিক্রম করেছ।।আমার কাজ গুলো তোমরা স্বেচ্ছায় স্বজ্ঞানে নিপুণ হাতে সম্পাদন করে দিচ্ছো।

তখন আমার হতে আর কাজ থাকে কি করে ? যার কারনে আমার কাজ একটু হালকা তাই রিলাক্স মুডে আছি। টা-টা বাই-বাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: