fbpx
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
হাততালি দেয়া যাবে তবে চিৎকার করা যাবে না! সাদুল্লাপুরে চাকুরি নিয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে নববধূকে ধর্ষণ ১ কোটি দর্শক একদিনে দেখলেন নুসরাতের সেই ভিডিও সৌদি নারী একসঙ্গে ১০ সন্তানের জন্ম দিলেন শীতের ঠাণ্ডাও শরীরের জন্য উপকারী “রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক” পেলেন গাইবান্ধার পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা সাদুল্লাপুরে জোড়পৃর্বক জমি দখল নিতে মামলা অপপ্রচার ও হুমকী প্রদর্শন ক্যাপ্টেন পরিচয়ে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ায় আব্দুর রাজ্জাক নামে ভূয়া ক্যাপ্টেন আটক মুজিব জন্মশতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে গাইবান্ধা থিয়েটারের নাটক পরিবেশিত

দিনমজুরের কাজ করছেন এক নারী ফুটবলার

অনলাইন ডেস্ক / ১২০ Time View
Update : শুক্রবার, ২৮ মে, ২০২১, ৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

মহামারি করোনা পুরোপুরি নিঃস্ব হয়ে ইটভাটায় দিনমজুরের কাজ করছেন ভারতের এক নারী ফুটবলার।

২০ বছর বয়সি এ ফুটবলারের নাম সংগীতা কুমারী। যে সময় পায়ে বল ঠেলে মাঠ দাপিয়ে বেড়ানোর কথা, সেই সময়ে মাথায় ইটের বোঝা বয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি।

সাধারণ মানের খেলোয়াড় নন সংগীতা। ঝাড়খণ্ড নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক তিনি। ২০১৮ সালে ভারতের জাতীয় অনূর্ধ্ব-১৮ দলের হয়ে ভুটানে খেলেছেন।  এর পর অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে থাইল্যান্ডে খেলে এসেছেন।

সর্বশেষ ঝাড়খণ্ড নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সংগীতা।  তার বাড়িও ঝাড়খণ্ডে।  সেখানে বুলি জেলার বান্সমুদি গ্রামের বাসিন্দা তিনি।

খেলাই সংগীতার পেশা। কিন্তু লকডাউনের কারণে গত দুই বছর ধরে খেলাধুলা পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নিঃস্ব হয় পড়েছেন ভারতের এই কৃতী নারী ফুটবলার। এই সময়টিতে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে সহায়তা বা কোনো কাজও পাননি তিনি।

পরে পেটের টানে ইটভাটায় কাজ নেন সংগীতা।

ইটের বোঝা বয়ে জীবনের ঘানী টেনে নেওয়া কেমন উপভোগ করছেন সংগীতা? জবাবে বললেন, ‘গত বছর কঠোর লকডাউন থাকায় কেউ দিনমজুরের কাজও করতে পারেনি।  অথচ প্রায় ভাতে মরতে বসেছিলাম। এবার লকডাউন অতোটা কঠোর নয়। আমি যতগুলো ইট বয়ে নিয়ে যাই, প্রত্যেকটার জন্য টাকা পাই। ১০টা থেকে ৫টা পর্যন্ত কাজ করে ১৫০-২০০ টাকা হাতে আসে। এটা দিয়ে কোনোমতে চলে যাচ্ছে।  কাজ যে করতে পারছি এতেই খুশি আমি।’

এমন সব কথা বলে সংগীতা নিজের করুণ দশাকে ঢাকার চেষ্টা করলেও বিষয়টি সরকারের নজরে এনেছেন ভারতের জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারপারসন রেখা শর্মা।  তার মতে, সংগীতার মতো একজন ক্রীড়াবিদ ইটভাটায় কাজ করছেন— এটি জাতির জন্য লজ্জা। অবিলম্বে সংগীতাকে সাহায্য করে তার মাথা থেকে ইটের বোঝা নামানোর জন্য ঝাড়খণ্ড সরকারের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি।

রেখা শর্মার সেই অনুরোধে সাড়া দিয়েছে ঝাড়খণ্ড সরকার। সেখানকার স্পোর্টস সেক্রেটারি পূজা সিংঘাল জানিয়েছেন, সংগীতাকে আর্থিক সহায়তা করা হবে শিগগিরই। রাজ্যের কোনো একটি স্পোর্টস স্কলারশিপ প্রোগ্রামের আওতায় নিয়ে আসা হবে এই জাতীয় দলে ফুটবলারকে।

তথ্যসূত্র: আউটলুক ইন্ডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: