রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:১০ অপরাহ্ন
নোটিশ

জেলা/উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ : সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকার জন্য গাইবান্ধা  জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা , উপজেলা, থানা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান/এলাকায় প্রনিতিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাসপোর্ট সাইজের এক কপি ছবিসহ সরাসরি অথবা ডাকযোগে সম্পাদক বরাবর আবেদন করুন

প্রকাশক সম্পাদক, সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে , গোডাউন রোড, কাঠপট্টী, গাইবান্ধা। ফোন: : ০১৭১৫-৪৬৪৭৪৪, ০১৭১৩-৫৪৮৮৯৮,

টিকার বদলে স্যালাইন পানি

অনলাইন ডেস্ক / ১০১ Time View
Update : শুক্রবার, ১৩ আগস্ট, ২০২১, ৬:৫১ অপরাহ্ন

ভারতের একটি এলাকায় টিকার নাম করে শুধু পানি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে, যার ভুক্তভোগী ছিলেন খোদ তৃণমূল সংসদ সদস্য ও টালিউড তারকা মিমি চক্রবর্তী। এমনকি চীনেও ভুয়া করোনা টিকা দেওয়ার খবর শোনা গেছে। এবার অনেকটা একই ঘটনা ঘটল জার্মানিতেও। সেখানে করোনা টিকার বদলে ইনজেকশনে স্যালাইনের পানি ঢুকিয়ে পুশ করেছেন এক নার্স। সম্প্রতি উত্তর জার্মানির লোয়ার স্যাক্সনির একটি শহরে ঘটেছে এই ঘটনা। এতে গত ৫ মার্চ থেকে ২০ এপ্রিলের মধ্যে টিকা নেওয়া ৮ হাজার ৫৫৭ জন প্রভাবিত হতে পারেন বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

জানা যায়, গত এপ্রিলে করোনা টিকার বদলে স্যালাইন পানি দিয়েছিলেন ওই নার্স। তার আইনজীবীর দাবি, এমন ঘটনা মাত্র একবারই ঘটেছিল। দুর্ঘটনাক্রমে টিকার একটি শিশি ভেঙে ফেলেছিলেন নার্স। এতে খুবই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েন তিনি। তখন ভয় পেয়ে ও চাকরি বাঁচাতে স্যালাইন পানির টিকা দিয়ে দেন। আইনজীবীর দাবি, টিকার মধ্যেই স্যালাইন পানি যোগ করে দিয়েছিলেন নার্স। ফলে টিকা যে মোটেও দেওয়া হয়নি, তা নয়।

তবে তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, কমপক্ষে ছয়বার করোনা টিকার নামে স্যালাইন দেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন অভিযুক্ত নার্স। কিন্তু এ দাবি তারা মানছেন না। তদন্তকারীরা ধারণা, আরো অনেককেই স্যালাইনের টিকা দেওয়া হয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীরাও বলছেন, ওই নার্স আরো অনেককে স্যালাইন দিয়েছেন বলে মনে হচ্ছে তাদের। এ ঘটনায় অভিযুক্তকে ইতোমধ্যে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তিনি কেন এই কাজ করলেন তা পরিষ্কার নয়। তবে কিছুদিন আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে করোনা টিকা নিয়ে নিজের সংশয়ের কথা জানিয়েছিলেন ওই নার্স।

জার্মান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, স্যালাইন দেওয়ায় এমনিতে শরীরের কোনো ক্ষতি হবে না। কিন্তু করোনারোধী টিকা যে অ্যান্টিবডি তৈরির জন্য দেওয়া হয়, সেটি তৈরি হবে না। আর ওই সময় মূলত বয়স্করা টিকা পেয়েছেন। ফলে তারা সংক্রমণের ঝুঁকিতে থাকবেন। কর্মকর্তারা অবশ্য জানিয়েছেন, নার্সের এই কাণ্ডের পর এলাকায় করোনার প্রকোপ বাড়তে দেখা যায়নি।

সূত্র: ডয়েচে ভেলে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: