শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:২৬ পূর্বাহ্ন
নোটিশ

জেলা/উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ : সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকার জন্য গাইবান্ধা  জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা , উপজেলা, থানা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান/এলাকায় প্রনিতিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাসপোর্ট সাইজের এক কপি ছবিসহ সরাসরি অথবা ডাকযোগে সম্পাদক বরাবর আবেদন করুন

প্রকাশক সম্পাদক, সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে , গোডাউন রোড, কাঠপট্টী, গাইবান্ধা। ফোন: : ০১৭১৫-৪৬৪৭৪৪, ০১৭১৩-৫৪৮৮৯৮,

গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র নদের পানি বৃদ্ধি : ব্যাপক ভাঙ্গনে ফুলছড়ির ফজলুপুর ইউনিয়ন

স্টাফ রিপোর্টার / ৯১ Time View
Update : বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:৫২ অপরাহ্ন
Exif_JPEG_420

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও ভারী বর্ষণে জেলার ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার বিকাল ৩টা থেকে গাইবান্ধার ফুলছড়ি পয়েন্টে ব্রহ্মপুত্রের পানি গতকাল বুধবার ৩টা পর্যন্ত ১৪ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৪০ সেন্টিমিটার ও ঘাঘট নদীর পানি ১০ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৮ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। ফলে নদীর তীরবর্তী নিচু এলাকা এবং চরাঞ্চলে পানি ঢুকে পড়েছে।

এদিকে পানি বৃদ্ধির ফলে ব্রহ্মপুত্র নদের তীরবর্তী ফজলুপুর ইউনিয়নে পানি বন্দি হয়ে পড়েছে ১৫ শতাধিক পরিবার। এদের মধ্যে অনেকের ভিটে-মাটি, বাড়ী-ঘর নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। আবার ভাঙ্গনের আশঙ্কায় অনেকেই বাড়ী-ঘর সরিয়ে অনত্র অবস্থান নিচ্ছে। বন্যা পিড়ীত লোকজন আর্থিক সংকটে পড়ে অসহায় অবস্থায় দিনযাপন করছেন।

বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, বন্যা পিড়ীত মানুষদের করুন অবস্থা। বিশেষ করে তারা খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানি সংকটে ভুগছেন। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় এক ভুতরে অবস্থায় বিরাজ করছে বন্যা কবলিত এলাকা গুলোতে। এছাড়াও ২ হাজার বিঘা জমির আমন বীজতলা, রোপা আমন, পাট, মরিচ, বেগুন, পটলসহ বিভিন্ন ফসল তলিয়ে গেছে পানির নিচে। রাস্তা-ঘাটও যোগাযোগ ব্যবস্থ্য বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

দূর্গত লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, এখন পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি সংস্থা কিংবা কোন এনজিও প্রতিষ্ঠান এলাকা পরিদর্শন ও সার্বিক সহযোগীতায় এগিয়ে আসেনি।

এব্যাপারে ফজলুপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু হানিফ প্রামানিক জানান, পানি বৃদ্ধির কারণে নদীর ¯্রােত বেড়ে যাওয়ায় তার ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের মধ্যে ৭টি ওয়ার্ডে ব্যাপক ভাঙন দেখা দিয়েছে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় ১৫ শতাধিক পরিবার তাদের বসতভিটা হারিয়েছেন। সরকারি ভাবে ত্রান হিসাবে মাত্র ৩ টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। যাহা ক্ষতিগ্রস্তদের তুলনায় অপ্রতুল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: