fbpx
বৃহস্পতিবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২২, ১১:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
গাইবান্ধায় শীতজনিত রোগী বাড়ছে গোবিন্দগঞ্জে অক্টোবরের ভালো চাল আত্মসাত করে জানুয়ারিতে দিলেন পঁচা চাল বিয়ের প্রলোভনে গৃহবধূকে ৮ বছর ধর্ষণ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ১৩ তম সাদুল্যাপুরের নলডাঙ্গার চেয়ারম্যান প্রার্থীকে আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কার গাইবান্ধায় অসহায় শীতার্ত মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ সংসদে বিল: সব জেলা পরিষদে সমান সদস্য থাকছে না, বসানো যাবে প্রশাসক গাইবান্ধার সাদুল্লাপুরে ৫ লক্ষাধিক টাকা মূল্যের সরকারি বই সাড়ে ২৭ হাজার টাকায় বিক্রি পঞ্চমবার বিয়ের পিঁড়িতে চিত্রনায়িকা পরীমনি মিহির ঘোষসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে বাম জোটের বিক্ষোভ

গাইবান্ধায় ভোগদখলীয় জমি থেকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র

স্টাফ রিপোর্টার / ১০২ Time View
Update : শনিবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০২১, ৪:৫৫ অপরাহ্ন

গাইবান্ধা সদর উপজেলার থানসিংহপুর গ্রামের মৃত শাহাদত হোসেন আলীর ছেলে নজরুল ইসলাম পৈত্রিক ভোগ দখলীয় জমি একই এলাকার ভুমিদস্যু আব্দুল কাদের কান্দুর শেখের ছেলে আব্দুল বাকি মিয়া সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে জোর পূর্বক দখলের চেষ্টা চালায়। এব্যাপারে নজরুল ইসলামের ছেলে তোতা মিয়া সদর থানায় দিতে গেলে পুলিশ তা গ্রহণ না করে উল্টো প্রতিপক্ষ বাকি মিয়ার পক্ষে হয়রানীমূলক মামলা গ্রহণ করে।

শনিবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব অভিযোগ জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে নজরুল ইসলাম লিখিত বক্তব্যে উল্লেখ করেন, বিরোধপূর্ণ জমি নিয়ে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ সারোয়ার কবীরের কাছে অভিযোগ করা হয়। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে উভয় পক্ষের মতামত নিয়ে গত গত ২৭ নভেম্বর ও ৪ ডিসেম্বর কাগজপত্র যাচাই বাছাইয়ের পর গত ১১ ডিসেম্বর চেয়ারমানের প্রতিনিধি ও একজন আমিন দ্বারা জমি পরিমাপ করার দিন ধার্য করা হয়। কিন্তু উক্ত তারিখে চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি মো. রাজিব মিয়া ও আমিন সহ সরেজমিনে উপস্থিত হইলে স্থানীয় লোকজনের সম্মুখে আমিন ও নজরুল ইসলামের বড় জামাতা সুমন মিয়া ওই মাপ দেখার জন্য আসার সময় আব্দুল বাকি মিয়ার বাড়ির সামনে উপস্থিত হওয়া মাত্রই বাকি মিয়ার হুকুমে তার দলভুক্ত সন্ত্রাসী বাহিনীর লোকজন সুমন মিয়াকে ঘেরাও করে আকস্মিকভাবে এলোপাথারিভাবে মারপিট শুরু করলে তার আত্ম চিকৎকারে তার ছোট জামাতা বাপ্পী মিয়া তাকে রক্ষা করার জন্য এগিয়ে যায়। এসময় তাকেও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ খুন, জখম করার জন্য আক্রমণ করে। পরবর্তীতে আমার পরিবারের লোকজন মারপিটের সংবাদ পেয়ে তাদের উদ্ধারের জন্য এগিয়ে গেলে বাকি মিয়ার সন্ত্রাস বাহিনী তাকেসহ তার পরিবারের লোকজনদের বেদম মারপিট করে। ফলে উক্ত মারপিটের ঘটনা তাৎক্ষনিকভাবে তার ছেলে তোতা মিয়া ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশের সাহায্য চায়।

পরবর্তীতে জখমীদের উদ্ধার করে ভ্যানযোগে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। এ ঘটনায় গত ১২ ডিসেম্বর তোতা মিয়া এ বিষয়ে সদর থানায় মামলা করতে গেলে আব্দুল বাকি মিয়াসহ তার দলভুক্ত সন্ত্রাসী বাহিনীর বিরুদ্ধে একটি এজাহার দায়ের করতে যায়। এসময় থানা কর্তৃপক্ষ অজ্ঞাত কারণে উক্ত মামলাটি গ্রহণ না করে নানা তালবাহানা করতে থাকে। অদ্যাবধি থানা কর্তৃপক্ষ মামলাটি এজাহারভুক্ত করেনি। থানা কর্তৃপক্ষ আমার ছেলের মামলা গ্রহণ না করে বাকি মিয়া কর্তৃক প্রভাবিত হয়ে তার দায়েরকৃত মামলা গ্রহণ করে।

তিনি উল্লেখ করেন, উক্ত ঘটনার সময় এবং জমির মাপযোগ ও মারপিটের সময় আমার ভাগ্নে রমজান আলী উপজেলা পরিষদে তার নিজ দায়িত্ব পালন করার জন্য উপজেলায় ছিল। তার পরেও চক্রান্ত করে তার ভাগ্নে রমজান আলীকে আসামি করা হয়েছে। আমি একজন অসহায় গরীব মানুষ, আমাকে ও আমার পরিবারের লোকজনদেরকে মিথ্যা মামলায় হয়রানী করা সহ আব্দুল বাকি মিয়া তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রকার ষড়যন্ত্র ও হুমকি প্রদান করে আসছে। তিনি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের আদেশ মেনে নেয়ার পরও বাকি মিয়া তার সন্ত্রাসী বাহিনী দ্বারা চেয়ারম্যানে আদেশ অমান্য করে তাকে খুন, জখমের ভয়ভীতিসহ এলাকায় ঢুকতে দেবে না বলিয়া হুমকি প্রদান করছে। তাকে ও তার পরিবারের লোকজনকে ফাঁসাতে বাকি মিয়া গত ১৫ ডিসেম্বর রাতে তার বাড়িঘর ও পলের পুঞ্জে আগুন লাগিয়ে দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। তিনি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক, পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন তোতা মিয়া, লালমতি বেগম, শাহিদা বেগম, সুলতানা বেগম, নাছিমা বেগম, সুমন মিয়া, তিতু মিয়া, বুলবুলি বেগম, লিপি বেগম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: