fbpx
বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন
বিজ্ঞপ্তি :

জেলা/উপজেলা প্রতিনিধি নিয়োগ : সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে পত্রিকার জন্য গাইবান্ধা জেলার বিভিন্ন উপজেলাসহ দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা, থানা, বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান/এলাকায় প্রনিতিধি নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ও পাসপোর্ট সাইজের এক কপি ছবিসহ সরাসরি অথবা ডাকযোগে সম্পাদক বরাবর আবেদন করুন।প্রকাশক ও সম্পাদক, সাপ্তাহিক গাইবান্ধার বুকে , গোডাউন রোড, কাঠপট্টী, গাইবান্ধা। ফোন: : ০১৭১৫-৪৬৪৭৪৪, ০১৭১৩-৫৪৮৮৯৮

পলাশবাড়ীতে কয়লা তৈরীর কারখানায় অভিযান

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল / ৫৭ বার পঠিত
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২২ নভেম্বর, ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলা অবৈধভাবে কাঠের গুড়ি পুড়িয়ে কয়লা তৈরির একটি কারখানায় অভিযান চালিয়েছে প্রশাসন। এসময় ফায়ারসার্ভিস দল কারখানার ৭ চুল্লির আগুন পানি দিয়ে নিভে দেন। পরে এস্কেভেটর দিয়ে সম্পূণ গুড়িয়ে দেওয়া হয়।
সোমবার দুপুরে উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নে বাসুদেবপুর (নুরিয়াপাড়া) গ্রামে এ অভিযান পরিচালিত হয়।

সম অভিযানে নেতৃত্ব দেন পরিবেশ অধিদপ্তর রংপুর বিভাগের উপপরিচালক হাসন-ই-মোবারক। তার সঙ্গে ছিলেন পলাশবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কামরুজ্জামান নয়ন।

জানা যায়, অবৈধভাবে চলমান ওই কারখানা চুল্লি থেকে নির্গত ধোঁয়ায় এদিকে নষ্ট হচ্ছে ফসলি জমি। অন্যদিকে শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছিল সাধারণ মানুষ। স্থানীয় নজরুল ইসলাম ও মিজানুর রহমান নামে দুই ব্যক্তি জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন ছাড়াই জনবসতিপর্ণ এলাকায় কারখানা স্থাপন করেন। যা পরিবেশ ও স্বাস্থ্যের জন্য হুমকি স্বরুপ। প্রতিটি চুল্লিতে প্রতি রাউন্ডে ২০০ থেকে ৩০০ মণ কাঠ পোড়ানো হয়। ৮ থেকে ১০ দিন পোড়ানোর পর চুলা থেকে কয়লা বের করা হয়। চুল্লি থেকে নির্গত ধোঁয়ায় আশপাশ আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। এতে একদেকে এলাকায় শ্বাসজনিত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। অন্যদিকে উঠতি ফসলের উপর বিরুপ প্রভাব ফেলছে।

অভিযানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কামরুজ্জামান নয়ন। তিনি বলেন, অবৈধভাবে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরীতে পরিবেশ দূষণ হচ্ছিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সব খবর...
এক ক্লিকে বিভাগের খবর
%d bloggers like this:
%d bloggers like this: